২০১৮ সালের সৌদির ছবিকে ইজরায়েল-প্যালেস্তাইন সংঘর্ষের সাথে যুক্ত করে ভুয়ো পোস্ট ভাইরাল

False International

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, তুরস্ক ও পাকিস্তান থেকে কয়েকটি যুদ্ধবিমান প্যালেস্তাইনে পাঠানো হচ্ছে। ছবিতে তিনটি সবুজ রঙের যুদ্ধ বিমানের কোলাজ রয়েছে। এই পোস্টের ক্যাপশনে লেখা রয়েছে “আলহামদুলিল্লাহ ফিলিস্তিন এর পথে তুর্কি ও পাকিস্তান সৈন্য। আগামীকাল বিমান বাহিনী প্রেরণ করার কথা সৌদি আরবের। আল্লাহ তুমি এই বীর সেনাদের কবুল করো। মুসলমান দের রক্ষা করো । আমিন।“

আমরা তথ্য যাচাই করে জানতে পারি এই দাবি ভুয়ো ও ভিত্তিহীন। ২০১৮ সালে সৌদির জাতীয় দিবস উপলক্ষে প্রস্তুত করা বিশেষ যুদ্ধবিমানের ছবিকে সম্প্রতি পালেস্তাইন-ইসরায়েল সংঘর্ষের সাথে যুক্ত করে ভুয়ো পোস্ট ভাইরাল করা হচ্ছে।  

ফেসবুকআর্কাইভ 

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ফের ইজরায়েল ও ফিলিস্তিনের বহু প্রাচীন সংঘর্ষের আগুন জ্বলে উঠেছে। এবার ঘটনাস্থল জেরুজালেমের আল-একসা মসজিদ। ইতিমধ্যেই সংঘর্ষ রীতিমতো বড় আকার ধারণ করেছে দুপক্ষের মধ্যে। একে অপরের দিকে নিশানা করে চলে রকেট নিক্ষেপ। সংঘর্ষে এখনও পর্যন্ত ১৯২ জন প্রান হারিয়েছে যার মধ্যে ৫৫ জন শিশু এবং ৩৩ জন মহিলা। অন্যদিকে, হামাসের রকেট হামলায় দুজন ইজরায়েলি প্রান হারিয়েছে যার মধ্যে একজন ভারতীয় বলে জানা গিয়েছে। সংযুক্ত রাষ্ট্র সুরক্ষা পরিষদের সদস্য় এবং মুসলিম দেশের বিদেশ মন্ত্রীদের বৈঠক হয়েছে। ইজরাযেল ও হামাস জঙ্গি গোষ্ঠীর মধ্য়ে এক সপ্তাহ ধরে যুদ্ধ চলছে। বহু সাধারণ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। পরিস্থিতি ক্রমশ জটিল হয়ে দাঁড়াচ্ছে। তা ছাড়া দুই দেশের মধ্যে সংঘর্ষ দ্রুত রোখা না গেলে বহু সাধারণ মানুষ প্রাণ হারাবেন বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে। আর এবার মুসলিম দেশের বিদেশ মন্ত্রীরা এই ব্য়াপারে আমেরিকার হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন।

তথ্য যাচাই 

এই ছবির সত্যতা যাচাই করতে প্রথমে আমরা গুগলে রিভার্স ইমেজ সার্চ করি। ফলাফলে আমরা “দি আভিয়াসিওনিস্ত” নামক একটি সংবাদমাধ্যমের ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সালের একটি প্রতিবেদনে এই ছবিগুলি দেখতে পাই।

প্রতিবেদনআর্কাইভ

সেই প্রতিবেদন থেকে জানতে পারি ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, সৌদি আরবের ৮৮তম জাতীয় দিবস উপলক্ষে তাদের বায়ুসেনা পাঁচটি যুদ্ধবিমান রং করে প্রস্তুত করে। সেই পাঁচটির মধ্যে ভাইরাল পোস্টে তিনটি বিমানের ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। ভাইরাল হওয়া এই ছবির সবচেয়ে ওপরের বিমানটির নাম হল “দি টর্নেডো আই ডি এস”, দ্বিতীয় বা মাঝেরটি হল “দি ইউরোফাইটার টাইফুন” এবং শেষেরটির নাম হল “দি এফ-১৫৫”।

প্রথম ছবি 

দ্বিতীয় ছবি

তৃতীয় ছবি

এছাড়া প্রাসঙ্গিক কিওয়ার্ড সার্চ করে দেখতে পাই তুরস্ক, পাকিস্তান এমনকি আরাবও প্যালেস্তাইনকে কোনও যুদ্ধবিমান বা কোনরকম সৈন্য পাঠায়নি। পাকিস্তনা ও তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী এই ঘটনার তাড়াতাড়ি সুরাহা করার জন্য হাত মেলায়।  

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল। ২০১৮ সালে সৌদির জাতীয় দিবস উপলক্ষে প্রস্তুত করা বিশেষ যুদ্ধবিমানের ছবিকে সম্প্রতি পালেস্তাইন-ইসরায়েল সংঘর্ষের সাথে যুক্ত করে ভুয়ো পোস্ট ভাইরাল করা হচ্ছে।

Avatar

Title:২০১৮ সালের সৌদির ছবিকে ইজরায়েল-প্যালেস্তাইন সংঘর্ষের সাথে যুক্ত করে ভুয়ো পোস্ট ভাইরাল

Fact Check By: Nasim A 

Result: False


Leave a Reply

Your email address will not be published.