না, আমিত শাহর নিরাপত্তার স্বার্থে উপড়ে ফেলা হয়নি ঘন্টাতলার শতবর্ষ পুরনো বটবৃক্ষ

False Political

২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে একের পর এক বিজেপি নেতা রাজ্যে প্রচারের জন্য আসছেন। গত ২০ ডিসেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এক দিনের সফরে বোলপুর ও শান্তিনিকেতন এসেছিলেন। তাকে আপ্যায়ন করার জন্য সাজিয়ে তোলা হয় বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর এবং বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভুয়ো পোস্ট শেয়ার করে দাবি করা হয়, অমিত শাহর নিরাপত্তার স্বার্থে ভেঙে ফেলে হল শান্তিনিকেতনের ঘন্টাতলা। পোস্টের সাথে একটি ছবি শেয়ার করা হয় যেখানে দেখা যায় একটি গাছের বিভিন্ন অংশ মাটিতে পড়ে রয়েছে এবং এর ক্যাপশনে লেখা রয়েছে,
অমিত শাহ আসবেন বলে নিরাপত্তার অজুহাতে প্রিয় ঘন্টাতলা ভেঙ্গে দিলেন, প্রায় শতবর্ষের পুরনো গাছ কেটে দিলেন উপাচার্য l তা কাটুকগে l কদিন পর গলা কাটবে l” 

তথ্য যাচাই করে আমরা দেখতে পেয়েছি এই দাবি ভুয়ো এবং বিভ্রান্তিকর। এই ছবিটি চলতি বছরের অগস্ট মাসের একটি ঘটনার এবং এর সাথে অমিত শাহর বিশ্ব-ভারতী সফরের কোনও সম্পর্ক নেই। 

GhantaTala VB.png
ফেসবুক আর্কাইভ 
download (19).png
ফেসবুক আর্কাইভ 

তথ্য যাচাই

শুরুতেই আমরা রিভার্স ইমেজ সার্চ সহ বিভিন্ন রকম কিওয়ার্ড সার্চ করে এর অনুসন্ধান করার চেষ্টা করি। সার্চের ফলাফল থেকে কোনও যথাযথ তথ্য পাওয়া যায় না। 

ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো বিশ্ব-ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অশোক কুমার মাহাতোর সাথে যোগাযোগ করে। তিনি আমাদের জানান অমিত শাহর সফরের জন্য কোনও গাছ কাটা হয়নি। তিনি বলেন, 

অমিত শাহর ঘন্টাতলার পাশ দিয়ে যাওয়ার কোনও কথাই ছিল না। শান্তিনিকেতনে এরকম কোনও ঘটনা ঘটেনি। অগস্ট মাসে এক ঝড়ের প্রকোপে ঘন্টাতলায় বটগাছটি ভেঙে পড়ে যায়। এটি পুরনো একটি ঘটনা এবং এর সাথে অমিত শাহর সফরের কোনও সম্পর্ক নেই।“ 

এরপর আমরা কিওয়ার্ড সার্চ করে সংবাদমাধ্যম ‘নিউজ ১৮ বাংলা’র একটি প্রতিবেদনে ঘণ্টাতলার বটগাছটি ভেঙে যাওয়ার খবর দেখতে পাই। চলতি বছরের ২৬ অগস্টের এই প্রতিবেদনটি অনুযায়ী,

“শান্তিনিকেতন গৌড়প্রাঙ্গণে বড়  ঘণ্টাতলার ওপর ভেঙে পড়ল প্রাচীন বটবৃক্ষ। গাছ ভেঙে পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ঐতিহ্যবাহী ঘণ্টাতলাটি। জানা গিয়েছে, গুরুদেবের সময় থেকেই রয়েছে এই বটবৃক্ষটি৷ গাছটিকে ঘিরেই তৈরি হয়েছিল ঘন্টাতলাটি।“

Bot gach.png
নিউজ ১৮ বাংলা প্রতিবেদন আর্কাইভ 

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল। অগস্ট মাসে এক ঝড়ের প্রকোপে উপড়ে যায় ঘন্টাতলার প্রাচীন বটগাছটি। অমিত শাহর সফরের সঙ্গে এই ছবির কোনও সম্পর্ক নেই। 

Avatar

Title:না, আমিত শাহর নিরাপত্তার স্বার্থে উপড়ে ফেলা হয়নি ঘন্টাতলার শতবর্ষ পুরনো বটবৃক্ষ

Fact Check By: Rahul A 

Result: False


Leave a Reply

Your email address will not be published.