পুরনো ভিডিও শেয়ার করে ভুয়ো দাবি, ‘পাকিস্তান থেকে অক্সিজেন আসছে ভারতে’

Coronavirus False

করোনা ঝড়ে বেসামাল গোটা দেশ। দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা প্রায় চার লক্ষ। এই মারণ ভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যাও ঊর্ধ্বগামী। গত দুই সপ্তাহে দেশের বিভিন্ন রাজ্য থেকে খবর এসেছে অনেকেই অক্সিজেনের অভাবে প্রাণ হারিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, পাকিস্তান থেকে ভারতে অক্সিজেন পাঠানো হচ্ছে। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে একটি বর্ডার জাতীয় যায়গায় দুটি অ্যাম্বুলেন্স দাড়িয়ে রয়েছে। ওই গাড়ি দ্বয়ের আশে পাশে বেশ নিয়াপত্তারক্ষী দাড়িয়ে রয়েছে। ভিডিওর ওপরে লেখা রয়েছে, “Pakistan gives Oxygen to India”। পোস্টের ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “ভারত যাদের সারা বছর পাকিস্তান কে আতংবাজ বলে বা জঙ্গি বলে ছোট করে….তাঁরাই আজ অক্সিজেন নিয়ে ছুটচে ভারতের মানুষকে বাঁচানোর জন্য….সত্যি ইসলাম মহান… অক্সিজেন দিচ্ছে ভারত কে…”। 

তথ্য যাচাই করে দেখতে পেয়েছি এই দাবি ভুয়ো এবং ভিত্তিহীন। পুরনো একটি ভিডিওকে করোনা ভাইরাসের সাথে যুক্ত করে বিভ্রান্তিকর পোস্ট ভাইরাল করা হচ্ছে। 

ফেসবুক

উল্লেখ্য, ভারতের পাশে দাঁড়াতে চেয়েছে পাকিস্তানের ইধি ফাউন্ডেশন। মোট ৫০টি অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে সাহায্য করতে চেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছেন ইধি ফাউন্ডেশনের প্রধান ফইজল ইদি। যদিও, কেন্দ্রের তরফে এই চিঠির কোনও প্রতিক্রিয়ার খবর এখনও জানা যায়নি। 

তথ্য যাচাই 

পোস্টের ভিডিওটিকে কয়েকটি ফ্রেমে ভাগ করে গুগলে রিভার্স ইমেজ সার্চ করে ইউটিউবে ভিডিওটিকে দেখতে পাই। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর আপলোড করা এই ভিডিওর শীর্ষকে লেখা রয়েছে, “ওয়াঘা সীমান্তে মৃতদেহ বদলি করল অ্যাম্বুলেন্স”। নিচে বিবরণে লেখা রয়েছে ভিডিওটি ২০১৮ সালের ২৭ ডিসেম্বর তোলা হয়েছে। 

আর্কাইভ

এছাড়াও আরেকটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে ৫ মাস আগে এই ভিডিওটি শেয়ার করা হয়েছিল। এই দুটি ভিডিও থেকে প্রমান হয় এটি সম্প্রতির ঘটনা নয়। ২০১৮ সাল থেকেই এই ভিডিওটি ইন্টারনেটে রয়েছে। 

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল। পুরনো একটি ভিডিওকে করোনা ভাইরাসের সাথে যুক্ত করে বিভ্রান্তিকর পোস্ট ভাইরাল করা হচ্ছে।

Avatar

Title:পুরনো ভিডিও শেয়ার করে ভুয়ো দাবি, ‘পাকিস্তান থেকে অক্সিজেন আসছে ভারতে’

Fact Check By: Nasim A 

Result: False


Leave a Reply

Your email address will not be published.