Parle-G বিস্কুটের প্যাকেটের গায়ে থাকা ছোট মেয়েটি আসলে কে?- জানুন

False Social

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে একটি ছবি শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, পারলে-জি বিস্কুটের প্যাকেটে ব্যাবহৃত ছোট মেয়ের ছবিটি আসলে লেখিকা সুধা মুর্তির। পারলে-জি বিস্কুট একটি প্যাকেট এবং একজন পৌড় মহিলার ছবি সহ একটি গ্রাফিক্স বানানো হয়েছে যার ওপরে লেখা রয়েছে, “Parle-G বিস্কুটের গায়ে যেই মেয়েটির ছবি দেখা যায়, সে এখন ৭০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা নারী। প্রথম ছবিটি তোলা হয়, যখন তার বয়স ৪ বছর ৩ মাস ছিল।“ 

তথ্য যাচাই করে আমরা জানতে পারি পোস্টের মাধ্যমে করা দাবি ভুয়ো ও ভিত্তিহীন। পারলে-জি বিস্কুটের গায়ে থাকা মেয়েটি আসলে ৬০ দশকের সংস্থা ‘এভারেস্ট ক্রিয়েটিভস’ দ্বারা নির্মিত একটি কল্পনাপ্রসুত ছবি।   

ফেসবুক পোস্ট আর্কাইভ 
download - 2021-09-14T171921.087.png

তথ্য যাচাই 

এই দাবির সত্যতা যাচাই করতে ছবিটি গুগল রিভার্স ইমেজ সার্চ করি। ফলাফলে জানতে পারি ভাইরাল পোস্টের এই পৌড় মহিলার নাম সুধা মুর্তি। তিনি একজন ভারতীয় প্রকৌশল শিক্ষিকা, লেখিকা এবং একজন সমাজকর্মী। তিনি ইনফোসিস ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সেন পদে রয়েছেন। তিনি ইনফোসিসের সহ-প্রতিষ্ঠাতা এন আর নারায়ণ মূর্তিকে বিয়ে করেছেন। 

সুধা মুর্তি উইকি আর্কাইভ 

এই সুত্র ধরে গুগলে সুধা মুর্তি সার্চ করলে ভাইরাল পোস্টের ছবিটি বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে দেখতে পাওয়া যায়। ‘রিপাব্লিক ভারত’-এর ২০১৯ সালের একটি প্রতিবেদনে এই ছবি ব্যবহার যেখানে লেখা সুধা মূর্তির একটি বই প্রকাশ নিয়ে কথা বলা হয়েছে। এই বইটির নাম ছিল, ‘দ্য ডটার ফ্রম উইশিং ট্রি: পৌরাণিক কাহিনীতে মহিলাদের অস্বাভাবিক গল্প (The Daughter from a Wishing Tree: Unusual Tales about Women in Mythology)’। 

সুধা মুর্তি গুগল 

পারলে-জি বিস্কুটের প্যাকেটে থাকা মেয়েটির পরিচয়?

প্যাকেটের ছোট মেয়েটির পরিচয় জানার জন্য আমরা প্রথমে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে (ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম, টুইটার) থাকা ‘পারলে জি’র অফিশিয়াল আকাউন্টগুলি ভালোভাবে খুঁজে দেখতি। একটি ফেসবুক পোস্টে এর অনুসন্ধান পাওয়া যায়। ২০১৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ‘পারলে জি’ সংবাদ মাধ্যম ‘ইন্ডিয়া টাইমস’-এর একটি প্রতিবেদন শেয়ার ক্যাপশনে লেখা হয়, “জানতে আগ্রহী #ParleG বিস্কুট মোড়ক এর বাচ্চা মেয়েটি কে? খুঁজে পেতে এই প্রতিবেদনটি পড়ুন?”

পারলে-জি ফেসবুক পোস্ট আর্কাইভ 

১৯৬০ সালে ‘এভারেস্ট ক্রিয়েটিভস নামে একটি সংস্থা এই মেয়েটির ছবিটি বানায়। এটি কোনও আসল মেয়ের ছবি নয়, কল্পনায় আঁকা একটি ছবি মাত্র। মেয়েটির পরিচয় নিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জনের সঙ্গে যুক্ত করে অনেক ভুয়ো খবর ছড়িয়েছে এর আগে। সুধা মূর্তি ছাড়াও নীরু এবং গুঞ্জন গুন্ডানিয়ার মতো কয়েকজনের নামও যুক্ত করা হয়েছিল এই বিস্কুটের সাথে। এই সমস্ত দাবিকে খণ্ডন করেন ‘পারলে’ কোম্পানির প্রোডাক্ট ম্যানেজার মায়াঙ্ক শাহ। 

ইন্ডিয়া টাইমস প্রতিবেদন আর্কাইভ 

এরপর প্রাসঙ্গিক কিওয়ার্ড সার্চ এর মাধ্যমে সংবাদ মাধ্যম ‘দি ইকোনমিক্স টাইমস’-এর ২০১৩ সালের একটি প্রতিবেদন থেকে জানতে পারি, পারলে কোম্পানির প্রোডাক্ট ম্যানেজার মায়াঙ্ক শাহ এই মেয়েটির পরিচয় সংক্রান্ত সমস্ত দাবি খণ্ডন করেন। তিনি জানান, ছবিটি ৬০ দশকের সংস্থা ‘এভারেস্ট ক্রিয়েটিভস’ দ্বারা তৈরি। মানুষ এই মেয়েটির বিষয়ে তাদের নিজস্ব গল্প তৈরি করেছে এবং তাদের নিজস্ব নাম নির্ধারণ করেছে। 

দি ইকোনমিক্স টাইমস প্রতিবেদন  আর্কাইভ 

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল ও ভিত্তিহীন। পারলে-জি বিস্কুটের গায়ে থাকা মেয়েটি আসলে ৬০ দশকের সংস্থা ‘এভারেস্ট ক্রিয়েটিভস’ দ্বারা নির্মিত একটি কল্পনাপ্রসুত ছবি।

Avatar

Title:Parle-G বিস্কুটের প্যাকেটের গায়ে থাকা ছোট মেয়েটি আসলে কে?- জানুন

Fact Check By: Nasim A 

Result: False


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *