মোদী সরকারের টাকায় স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটি নির্মাণের খবরটি ভুয়ো

False Political

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে একটি গ্রাফিক্স শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, কেন্দ্রীয় সরকারের টাকায় তৈরি হয়েছে স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটি। পোস্টের গ্রাফিক্সে দেখা যাচ্ছে, একটি বিশাল জায়গা ঘিরে তৈরি করা হয়েছে দৈত্যকার একটি মূর্তি। গ্রাফিক্সের ওপর লেখা রয়েছে, “বেকার খরচের শীর্ষে মোদী সরকার। ১ হাজার কোটি টাকা খরচ করে মোদী সরকার তৈরি করলো স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটি। এর আগে ২৭০০ কোটি টাকা খরচ করে বানিয়েছে স্ট্যাচু অফ ইউনিটি। অথচ পেট্রোলিয়াম ঋণ বাবদ টাকা শোধ থেকে GST বাবদ রাজ্য গুলির টাকা দিতে গেলে অবস্থা খারাপ হয়ে যাচ্ছে মোদীজির।” 

পোস্টের ক্যাপশনে লেখা রয়েছে – মূর্তিজীবী মোদী সরকার।    

তথ্য যাচাই করে আমরা জানতে পারি পোস্টের দাবি ভুয়ো ও বিভ্রান্তিকর। সাধু শ্রী রামানুজাচার্যের স্মরনে তৈরি স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটি তার ভক্তদের অনুদানের টাকায় নির্মাণ করা হয়েছে।  

ফেসবুক পোস্ট আর্কাইভ 

তথ্য যাচাই 

এই দাবির সত্যতা যাচাই করতে আমরা গুগলে প্রাসঙ্গিক কিওয়ার্ড সার্চ দিয়ে করি। ফলাফলে, সংবাদমাধ্যম ‘দি মিন্ট’-এর প্রতিবেদন (আর্কাইভ) থেকে জানতে পারি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ৫ ফেব্রিয়ারি তারিখে সাধু শ্রী রামানুজাচার্যের স্মরণে তৈরি ২১৬-ফুট লম্বা ‘স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটি’ উদ্বোধন করবেন। 

সংবাদমাধ্যম ‘দৈনিক ভাস্কর’-এর একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, শ্রী রামানুজাচার্য স্বামীর স্মরনে নির্মিত ‘স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটি’ তেলাঙ্গানা রাজ্যের হায়দ্রাবাদ শহরে স্থাপন করা হয়েছে। এই মূর্তির উচ্চিতা ২১৬ ফুট এবং ৪৫ একর জমির ওপর তৈরি করা হয়েছে। স্ট্যাচু তৈরির সম্পূর্ণ কাজ সম্পন্ন করতে ১০০০ কোটির বেশি টাকা খরচ হবে। খরচের সম্পূর্ণ উৎস হল ভক্তদের অনুদান। এই প্রতিবেদনে সরকারের কোনও রকম সাহায্যের কথা উল্লেখ করা হইনি। 

‘নিউজ১৮ হিন্দি’-এর ২০২০ সালের ২৮ অগস্ট তারিখের প্রতিবেদন থেকেও একই তথ্য জানা যায়। 

প্রতিবেদন আর্কাইভ 

বিভিন্ন রকম সার্চ করে কোনও রিপোর্টেই আমরা সরকারি অনুদান বা কেন্দ্র সরকারের সাহায্যের কোনও তথ্যের উল্লেখ পাওয়া যায়। 

‘স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটির’ অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে এই মূর্তি তৈরির সমস্ত হিসেব খুঁজে পাই। জানতে পারি, ট্রাস্টের টাকায় এই মূর্তিটি তৈরি করা হয়েছে। ট্রাস্ট কতৃপক্ষের তরফে মূর্তি নির্মাণের জন্য বিশ্বজুড়ে ভক্তদের কাছে অনুদানের জন্য আবেদন করা হয়েছিল। মূর্তি নির্মাণের হিসেব দেখতে ক্লিক করুন এখানে।  

এই রিপোর্টে নরেন্দ্র মোদী বা কোনোরকম সরকারি সাহায্যের কথা উল্লেখ করা হয়নি। সমস্ত তথ্য এবং প্রমাণ সাপেক্ষে স্পষ্ট হয়ে যায় কেন্দ্রীয় সরকারের অর্থে ‘স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটি’ নির্মাণের খবরটি ভুয়ো।   

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল ও ভিত্তিহীন। না, সাধু শ্রী রামানুজাচার্যের স্মরনে তৈরি স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটি তার ভক্তদের অনুদানের টাকায় নির্মাণ করা হয়েছে।   

Avatar

Title:মোদী সরকারের টাকায় স্ট্যাচু অফ ইকুয়ালিটি নির্মাণের খবরটি ভুয়ো

Fact Check By: Nasim A 

Result: False