রাশিয়া-ইউক্রেন বিবাদঃ ২০১৫ সালের চিনা বিস্ফোরণের ভিডিওকে ভুয়ো দাবির সাথে শেয়ার

False International

রাশিয়ান রাষ্ট্রপতি পুতিন ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার পর থেকে মূলধারার সংবাদমাধ্যম থেকে শুরু করে সাধারণ ফেসবুক ইউজার, সকলেই ক্রমাগত পুরনো ভিডিও এবং ছবি শেয়ার করে সেগুলিকে চলমান যুদ্ধের দৃশ্য দাবি করে ভুয়ো খবর ছড়াচ্ছে। সম্প্রতি ফেসবুকে একটি ভিডিও শেয়ার করে সেটিকে ইউক্রেনে রাশিয়ান সেনাদের হামলার দৃশ্য বলে দাবি করা হচ্ছে। একটি মোবাইলের ক্যামেরা থেকে তোলা এই ১ মিনিটের ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে দূরে একটি বিস্ফোরণ ধীরে ধীরে বড় আকার ধারণ করে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে। 

পোস্টের ক্যাপশনে লেখা রয়েছেঃ ইউক্রেনে রাশিয়ান সেনাদের হা.ম.লা শুরু  দফায় দফায় বি.স্ফো.রণ। 

তথ্য যাচাই করে আমরা দেখতে পেয়েছি এই দাবি ভুয়ো এবং বিভ্রান্তিকর। ২০১৫ সালে চিনের তিয়ানজন শহরের একটি ক্যামিকেল ফ্যাক্টরিতে বিস্ফোরণের ভিডিওকে ইউক্রেনে রাশিয়ান হামলা বলে ভুয়ো দাবি করা হচ্ছে। 

ফেসবুক পোস্টফেসবুক পোস্ট

তথ্য যাচাই

এই দাবির সত্যতা যাচাই করতে আমরা ভিডিওটিকে ‘ইনভিড-উই-ভেরিফাই’ টুলে কি-ফ্রেমে ভাগ করে গুগলে রিভার্স ইমেজ সার্চ করি। ফলাফলে কোনও যথাযথ তথ্য পাওয়া যায় না। এরপর বিভিন্ন রকম প্রাসঙ্গিক কিওয়ার্ড সার্চের মাধ্যমে এর অনুসন্ধান পাওয়া যায়। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ‘বিবিসি’ ২০১৫ সালের ১৪ অগস্ট এই ভিডিওটি আপলোড করে যার শীর্ষকে লেখা রয়েছে, প্রত্যক্ষদর্শীরা ভয়াভহ তিয়ানজিন বিস্ফোরণের ভিডিও রেকর্ড করেছে। 

ভিডিওর নিচে দেওয়া বিবরণে লেখা রয়েছে, “চিনের তিয়ানজিন শহরে প্রত্যক্ষদর্শীদের দ্বারা তোলা দুটি বড় বিস্ফোরণের ভিডিওতে ঘটনার ভয়াভহতা ধরা পড়েছে। বিপজ্জনক পণ্য পরিচালনায় বিশেষজ্ঞ একটি কোম্পানির মালিকানাধীন একটি গুদামে আগুন লেগে এই বিস্ফোরণ ঘটার পর কয়েক ডজন মানুষের মৃত্যু হয় এবং কয়েকশো মানুষ আহত হয়। শহরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কেন এই আগুন লাগে তার কারণ এখনও জানা যায়নি। প্রত্যক্ষদর্শী ড্যান ভ্যান ডুরেন বিস্ফোরণের এই মুহূর্তটি তার মোবাইলের ক্যামেরায় রেকর্ড করেন এবং বিপদ এড়াতে সেখান থেকে পালিয়ে যান।”

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ‘দ্য গার্ডিয়ান’ ২০১৫ সালের ১৫ অগস্ট তারিখের একটি প্রতিবেদনে এই ভিডিওটি প্রকাশ করে। এই রিপোর্ট এই একই ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বলা হয়েছে, চিনের বন্দর শহর তিয়ানজিনে ক্যামিকাল প্ল্যান্টে বিস্ফোরণের এই ভিডিও ক্যামেরাবন্দি করে প্রত্যক্ষদর্শী ড্যান ভ্যান ডুরেন। কারখানায় বিষাক্ত গ্যাস ও ক্যামিকেল রাখা ছিল যার ফলে এই বিস্ফোরণ ঘটে। এই ঘটনার দমকলকর্মী সহ কমপক্ষে ৫৫ জনের মৃত্যু হয়। 

উপরোক্ত তথ্য এবং প্রমাণ থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় ভাইরাল এই ভিডিওর সাথে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কোনও সম্পর্ক নেই।

এই একই ভিডিওকে ইংরেজি ভাষাতেও একই ভুয়ো দাবির সাথে শেয়ার করা হয়। ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো ইংলিশ তার তথ্য যাচাই করে সেটিকে ভুল প্রমাণ করে। ফ্যাক্ট চেকটি পড়তে এখানে ক্লিক করুন।  

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল ও ভিত্তিহীন। ২০১৫ সালে চিনের তিয়ানজন শহরের একটি ক্যামিকেল ফ্যাক্টরিতে বিস্ফোরণের ভিডিওকে ইউক্রেনে রাশিয়ান হামলা বলে ভুয়ো দাবি করা হচ্ছে।

Avatar

Title:রাশিয়া-ইউক্রেন বিবাদঃ ২০১৫ সালের চিনা বিস্ফোরণের ভিডিওকে ভুয়ো দাবির সাথে শেয়ার

Fact Check By: Rahul A 

Result: False


Leave a Reply

Your email address will not be published.