ছিনতাইকারী দুষ্কৃতির পায়ে গুলিবিদ্ধ করার ভিডিওকে ধর্মীয় রং লাগিয়ে ভুয়ো পোস্ট ভাইরাল

Communal False

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে একটি ভিডিও শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, দুর্গাপূজা বন্ধ করার হুমকি দেওয়ায় আদিল মিয়া নামে এক ব্যক্তির পায়ে গুলি করলো উত্তরপ্রদেশের আজমগড় পুলিশ। পোস্ট করা ১৬ সেকেন্ডের এই ভিডিওতে বন্দুকধারী দুজন পুলিশ কর্মীকে দেখা যাচ্ছে। অন্য দুজন ব্যক্তি একজন আহত যুবককে কাঁধে করে হেঁটে নিয়ে আসছে। যুবকের ডান পায়ে চোট লেগেছে এবং পায়ে লাল রুমাল জড়ানো রয়েছে। পুলিশ কর্মীদের আহত জায়গা নিয়ে কথা বলতে শোনা যাচ্ছে। 

পোস্টের ক্যাপশনে লেখা হয়েছে, “এই ব্যাক্তিটির নাম আদিল মিঁয়া, উত্তরপ্রদেশের আজমগড়ে দুর্গা মন্ডপে ঢুকে পুজো বন্ধ করার হুমকি দিয়ে পালিয়েছিলো, আজকে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ ঠ্যাং এ গুলি করে দিয়েছে. . . . . জয় হো যোগী জী।” 

তথ্য যাচাই করে আমরা জানতে পারি পোস্টের মাধ্যমে করা দাবি ভুয়ো ও বিভ্রান্তিকর। নয়ডা পুলিশ দ্বারা ছিনতাইকারী দুষ্কৃতির পায়ে গুলি করা আহত যুবকের ভিডিওতে ধর্মীয় রং চড়িয়ে ভুয়ো পোস্ট শেয়ার করা হচ্ছে। 

ফেসবুক পোস্ট

তথ্য যাচাই

এই দাবির সত্যতা যাচাই করতে ভিডিওটিকে ‘ইনভিড-উই-ভেরিফাই’ টুলের মাধ্যমে কি ফ্রেমে ভেঙ্গে গুগলে রিভার্স ইমেজ সার্চ করি। ফলাফলে দেখতে পাই, সংবাদমাধ্যম ‘এবিপি নিউজ’-এর সম্পাদক পঙ্কজ ঝা এই একই ভিডিও ২০২১ সালের ১৭ অক্টোবর তার টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে শেয়ার করেন। টুইটের ক্যাপশন পড়ে জানতে পারি, লিফট দেওয়ার নামে ছিনতাইকারী ও ATM থেকে জবরদস্তি টাকা বের করে নেওয়ার অপরাধে নয়ডা পুলিশ চারজন দুষ্কৃতিকে গ্রেফতার করে। 

আর্কাইভ টুইট 

গৌতমবুদ্ধ নগর পুলিশ কমিশনারের অফিশিয়াল টুইটার হ্যান্ডলে থেকেও এই ঘটনা কেন্দ্রিক চারট ছবি  ১৭ অক্টোবর, ২০২১, তারিখে পোস্ট করা হয়। দ্বিতীয় ছবিটি এই ভাইরাল ভিডিওর অংশ। পোস্টের ক্যাপশনে থেকে জানা যায়, থানা বিটা-২ এলাকায় চেকিং করার সময়, ছিনতাইকারী দুষ্কৃতি ও পুলিশের সংঘর্ষ বাঁধে। এই সংঘর্ষে ৪ জন দুষ্কৃতির পা গুলিবিদ্ধ করা হয় এবং তাদের গ্রেফতার করা হয়। দুষ্কৃতিদের থেকে ১ লক্ষ্য টাকা ও অবৈধ অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়। 

আর্কাইভ টুইট 

ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো উত্তরপ্রদেশের গৌতম বুদ্ধ নগরের পুলিশ কমিশনারের সাথে যোগাযোগ করে। তিনি আমাদের জানান, “গত মাসে ‘পার্চকাস গ্যাং’-এর সদস্যদের নয়ডা পুলিশ দ্বারা গ্রেফতার করার সময় এই ভিফিওটি নেওয়া হয়েছিল। তারা অনেক রাজ্যে মানুষকে লিফট দেওয়ার বাহানায় ছিনতাই করত। এই মামলার ভিডিওতে সাম্প্রদায়িকতার রং লাগিয়ে ভুয়ো দাবির সাথে ভাইরাল করা হচ্ছে। এই দলের সদস্যরা সবাই হিন্দু।”

সংবাদ মাধ্যম ‘লাইভ হিন্দুস্থান’ এর প্রতিবেদন থেকে জানতে পারি, এই চারজন দুষ্কৃতির নাম আনন্দ বর্মা, শিব কুমার বর্মা, বাব্লু বর্মা এবং দিপক বর্মা। সংবাদ মাধ্যম ‘নবভারত টাইমস’-এর প্রতিবেদনেও একই কথা বলে।   

এই একই দাবি হিন্দি ভাষাতেও ভুয়ো দাবির সাথে ভাইরালা করা হয়েছে। ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো হিন্দি তার তথ্য যাচাই করে সেটিকে ভুয়ো প্রমাণ করে। ফ্যাক্ট চেক্টটি পড়ুন এখানে। 

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল ও ভিত্তিহীন। নয়ডা পুলিশ দ্বারা ছিনতাইকারী দুষ্কৃতির পায়ে গুলি করা আহত যুবকের ভিডিওতে ধর্মীয় রং চড়িয়ে ভুয়ো পোস্ট শেয়ার করা হচ্ছে।

Avatar

Title:ছিনতাইকারী দুষ্কৃতির পায়ে গুলিবিদ্ধ করার ভিডিওকে ধর্মীয় রং লাগিয়ে ভুয়ো পোস্ট ভাইরাল

Fact Check By: Nasim A 

Result: False


Leave a Reply

Your email address will not be published.